কথাতেইতো আছে ভেতো বাঙালির ভাত ছাড়া চলা দায়। বাঙালি মানেই ভাতের ওপর যেন এক অদ্ভুত টান আছে। চাইনিস হোক বা মোঘলাই কিংবা অন্য কোনও ডিস দিনের কোনও এক সময়ে ভাত চাই-ই চাই। আর তারপর একটা লম্বা ভাত ঘুম। কিন্তু জা'নেন কি ভাত খাওয়ার পর অনেকগুলো ভুল কাজ আম'রা নিজে'র অজান্তে করে থাকি।

কাজগুলো কি কি তা জে'নে নিন-প্রথমেই জে'নে রাখু'ন ভাতঘুম একেবারেই ঠিক নয়। ভাত খাওয়ার পরপরই ঘুমিয়ে পড়া খুবই খা'রাপ অভ্যাস। এর ফলে শ'রীরে মেদ জমে যায়। স'ঙ্গে স'ঙ্গে ঘুমিয়ে পড়লে খাবার ভালোভাবে হ'জম হয় না। ফলে গ্যাস্ট্রিক এবং ইন্টেস্টাইনে ইনফেকশন হয়।

জল বা জল জাতীয় খাবার খাবেন না। ভাত খাওয়ার অনুপাতে হাওয়া ও জলের জন্য পে'টে কিছুটা জায়গা রাখা উচিত। তাই খেয়ে উঠেই ভরপে'ট জল পান না করে ১০-১৫ মিনিট পর পান করাই ভালো। এতে হ'জমেও বেশ কাজে দেয়।খাবার শেষ করার পরপরই ফল খাবেন না। ভরা পে'টে ফল কথাটা প্রচলিত থাকলেও তা ভালো কাজে দেবে না।

এতে পে'টে গ্যাস হতে পারে। খাবার খাওয়ার অন্ত'ত এক থেকে দুই ঘণ্টা পর ফল খাওয়া উচিত। ভাত খাওয়ার পরপরই ধূমপান করবেন না। সারাদিনে অনেকগুলো সিগারেট খেলে যতটুকু না ক্ষ'তি করবে, তার চাইতে অনেক বেশী ক্ষ’তি করবে যদি ভাত খাবার পর করেন।

ভাত খাবার পর ১টা সিগারেট আর সার্বিকভাবে ১০টা সিগারেটের সমান অর্থ বহন করে। খেয়ে উঠেই চা খাবেন না। চায়ের মধ্যে প্রচুর পরিমানে টেনিক অ্যাসিড থাকে যা খাবারের প্রোটিনের পরিমাণকে ১০০ গুণ বাড়িয়ে তোলে। যার ফলে খাবার হ'জম হতে স্বা'ভাবিকের চেয়ে অনেক বেশী সময় লাগে। হাঁটা চলা করবেন না।

অনেকেই বলে থাকেন খাবার পর ১০০ কদম হাটা মানে আয়ু ১০০ দিন বাড়িয়ে ফেলা। কিন্তু আ'সলে বিষয়টা পুরোপুরি সত্য নয়। খাবার পর হাঁটা উচিত , তবে অবশ্যই সেটা খাবার শেষ করেই তাত্ক্ষণিকভাবে নয়। খাবার পরপরই ব্যায়াম করা ঠিক নয়। খাবার পরপরই কোমড়ের বেল্ট কিংবা প্যান্টের কোমর আলগা করবেন না।

খাবার পরপরই বেল্ট কিংবা প্যান্টের কোমর আলগা করলে অতি সহজেই ইন্টেসটাইন (পাকস্থলি থেকে মলদ্বার পর্যন্ত খাদ্যনালীর নিম্নাংশ ) বেঁকে যেতে পারে, পেঁচিয়ে যেতে পারে অথবা ব্লকও হয়ে যেতে পারে। যাকে বলে ইন্টেস্টাইনাল অবস্ট্রাকশন। খাবার গ্রহণের পরপরই স্নান করবেন না।

কারণ খাওয়ার পরপরই স্নান করলে শ'রীরের র’ক্ত সঞ্চালন মাত্রা বেড়ে যায়। এর ফলে পাকস্থলির চারপাশের র’ক্তের পরিমাণ বেড়ে যায়। ঔষ’ধ খাবেন না। ভাত খাওয়ার পরপরই ঔষধ খাওয়া উচিত নয় বলে মনে করে অনেক চিকিত্সক। কারণ ভাত পরিপাকের জন্য প্র'স্তুত হতে কিছুটা সময় নেয়। এসময় পরিপাকের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন অ্যাসিড ক্ষরিত হয়। ফলে ঔষধের সাথে এগুলো মিলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হতে পারে। খাবার খাওয়ার ২০ থেকে ২৫ মিনিট পর ঔষধ খাওয়াটাই ভালো।