যারা অতিরি'ক্ত ওজন নিয়ে ভ'য়ে আছেন বা ওজন কমাতে চান তারা কমবেশী সবাই ভাতকে ভ'য় পান। কেননা প্রচলিত একটা ধারণাই আছে, ভাত খেলে মুটিয়ে যায়। আর সেই ধারণা থেকেই অনেকেই ভাত খাওয়াই ছে'ড়ে দেন। তবে বাঙালি মানেই তো মাছ-ভাত।

আর তাই না চাইলেও ভাত না খেয়ে থাকাটা অনেক কষ্টের। তবে এই ভাত না খাওয়া প্র'বণতা থেকে বের হয়ে আসুন, কেননা ভাত খেয়েও যে কেউ ওজন কমাতে পারবেন।

পুষ্টিবিদ আর বিশেষজ্ঞদের মতে, ভাতে রয়েছে এমন বেশ কয়েকটি পুষ্টিগুণ যা আমাদের শ'রীর-স্বা'স্থ্যের পক্ষে অত্যন্ত জ'রুরি!

১. ভাতে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট রয়েছে যা শ'রীরে প্রচুর শ'ক্তির যোগান দেয়। তবে ভাতে কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা বেশি থাকলেও এটি একটি লো ফ্যাট, লো সুগার জাতীয় খাবার। তাই ভাত আমাদের স্বা'স্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।

২. ব্র্যান অয়েল বা চালের থেকে তৈরি তেল আমাদের হার্টের জন্য খুবই উপকারী। এই তেলে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা আমাদের হৃদযন্ত্রকে সু'স্থ রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও নিয়মিত এই তেলের রান্না খেলে কোলেস্টেরল নি'য়ন্ত্রণে থাকে।

৩. ভাতে কোলেস্টেরল আর সোডিয়াম নেই। তাই যাদের হাইপারটেনশনের স'মস্যা রয়েছে, তারা নির্দিষ্ট পরিমাণে ভাত খেতে পারলে উপকৃত হবেন।

৪. একটা ধারণা আমাদের অনেকের মধ্যেই প্রচলিত আছে যে, ভাত খেলে মোটা হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়। কিন্তু বাস্তবে অন্য সব খাবারের মতোই নির্দিষ্ট পরিমাণে খেতে পারলে মোটা হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। পুষ্টিবিদরা জা'নাচ্ছেন, ১০০ গ্রাম ভাতে রয়েছে প্রায় ১০০ গ্রাম ক্যালরি।

৫. ভাত একেবারেই গ্লুটেন মু'ক্ত একটি খাবার। অনেকেরই গ্লুটেন যুক্ত খাবার সহ্য হয় না। তাই পুষ্টিবিদদের মতে, ভাত একটি ‘নন অ্যালার্জিক’ খাবার।